দিনযাপন | ০৩০৪২০১৫

আবারো রাতে বাসায় নাই … তাই দিনযাপনও নাই …

এখন থেকে মনে হয় কোনোদিন কোনো কারণে দিনযাপন না লেখা হলেই নিয়মিত পাঠকরা ধরে নেবে যে আমি বাসায় নাই …

গতকালকে সারাদিনের পরিশ্রম এতটাই কাবু করে দিয়েছিলো যে রাতে বাইরে থেকেও ২টা কি আড়াইটার দিকেই ঘুমিয়ে গেছি … কালকে ইনফ্যাক্ট বাইরে থাকতেই ইচ্ছা হচ্ছিলো না। একবার মনে হচ্ছিলো ‘না’ করে দেই, বাসায় রেস্ট নেই … কারণ একদিকে ভীষণ ক্লান্ত, আরেকদিকে হাতের কিছু খুচরা কাজ নিয়ে মহা বিরক্ত … বিরক্তি নিয়ে তো অ্যাটলিস্ট পার্টি করা চলে না! … তারপরও না গেলে আবার পার্টির উদ্যোক্তা কি মনে করে তাই গেলাম … কিন্তু ওই যে মনই করছিলো না যে বাইরে থাকি … ফলে মোটেই ভালো লাগছিলো না … সবসময় তো আর ‘কি আছে জীবনে’ মুড নিয়ে কাজকর্ম সব ফেলে রেখে থাকা যায় না! …

সকাল সাতটা থেকে এখন পর্যন্ত নির্ঘুম … সত্যিকার অর্থে রাতেও মোটেই গভীর ঘুম হয়নাই … জোর করে শুয়ে পরেছি ঠিকই, কিন্তু ঠাণ্ডা বাতাস, অন্যের বাসা, পাশের জানালা দিয়েই অন্যদের হা হা হি হি হাসি আর কথার শব্দে বারবারই ঘুম ভেঙ্গে যাচ্ছিলো … এই ঘুম আমার জন্য আরও ক্ষতিকর, কারণ তারপর সকালে এমন একটা সময় গভীর ঘুম আসে যে তখন ঘুমানোর আর কোনো উপায় থাকে না। আজকেও সেরকমই হলো … সাতটা সময় সবাই যখন প্রায় গভীর ঘুম, আমি তখন একা একা বের হয়ে বাসায় চলে আসলাম। তারপর একটা ছোটো কাজ শেষ করে সাড়ে দশটার মধ্যে শিল্পকলায় গেলাম। ওই যে কয়েকদিন আগে একটা ওয়ার্কশপ করলাম সামদানি আর্ট ফাউন্ডেশনের, তাদেরই আরেকটা ওয়ার্কশপ। আগেরটা যেমন বেশি ভালো লাগেনি, এবারের ওয়ার্কশপটা তেমনি বেশ ভালো লাগছে … অনেক ইন্টারঅ্যাক্টিভ, আর অনেকভাবেই নিজেকে কাজে লাগানোর সুযোগ আছে … তো, আজকে দ্বিতীয়দিনে আগেরদিনের চাইতেও বেশি পরিশ্রম গেলো … যর যতটা না পরিশ্রম ছিলো, আমার তার চাইতেও বেশি মনে হচ্ছিলো ঠিকমতো ঘুম না হবার কারণে … দিনের মাঝামাঝি আসতে না আসতেই বুঝলাম যে আজকে হয়তো দিনশেষে কলাপ্স করলেও করতে পারি … একদিকে প্রচণ্ড গরম, আরেকদিকে রীতিমতো ঘাম ঝরায়ে সেই ঘাম আবার শরীরেই শুকানো হলো … ফলে বিকেলের কাছাকাছি সময়ের মধ্যেই প্রচণ্ড পানিশূন্য হয়ে গেলাম! … কেমন জানি হাঁসফাঁস লাগছিলো … মনে হচ্ছিলো এই বুঝি মাথা ঘুরায় পড়ে যাবো! … প্রেশার লো হয়ে গেছিলো শিওর! …

সন্ধ্যায় গ্রুপে গিয়ে গ্লুকোজ মিশায় পানি খেয়ে তবু একটু শক্তি ফিরে পেয়েছি মনে হলো …

আর এখন দিনশেষে বাসায় ফিরতে ফিরতেই আবার প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাঁসফাঁস করছি …

তবে, আজকের দিনের সবচেয়ে সুন্দর মুহুর্তটা ছিলো হাতিরঝিলে … রাত প্রায় সাড়ে দশটা … মাত্রই বৃষ্টি হয়ে গেছে কিছুটা … আর তখন কি ঠাণ্ডা বাতাস … গ্রুপ থেকে বের হয়ে দল বেঁধে সব হাতিরঝিলের দিকে যাওয়া হলো … ঝিরিঝিরি বৃষ্টির মধ্যে একটা ব্রিজের নিচে দাঁড়িয়ে কোথায় খেতে যাবে, কি করবে সেসবের পরিকল্পনায় অন্যরা ব্যস্ত … আর গোপী, আমি আর সন্ধি ওদের থেকে একটু দূরে ঝিলের পাড় ঘেঁষেই একটা জায়গায় দাঁড়ানো … মাথার ওপরে চাঁদ একবার মেঘে ঢাকা পড়ছে, আবার উঁকি মারছে … বাতাসের সাথে সাথে পানির মৃদু ছিটা এসে মুখ-চোখ সব ভিজিয়ে দিচ্ছে … মনে হচ্ছে যেন সমুদ্রের পাড়ে দাঁড়িয়ে আছি! … গোপী যেন কি একটা গান গাইছিলো ওইখানে দাঁড়িয়ে, এখন কিছুতেই আর মনে করতে পারছি না … সাগর নিয়েই কি জানি একটা গান … অনেক সুন্দর একটা মুহুর্ত ছিলো … আর আমার মনে হচ্ছিলো সত্যি সত্যি কক্সবাজার চলে যেতে পারলে এখন সবচেয়ে ভালো হতো! … কোনো কাজ নাই! … কোথাও যাবার তাড়া নাই! … কোথাও ফেরার তাড়াও নাই! … সমুদ্রের গর্জন শুনতাম আর এভাবে ভেজা বাতাসে দাঁড়িয়ে থেকে নিজেও ভেজা ভেজা হয়ে যেতাম! …

প্রচণ্ড ক্লান্ত লাগছে আজকে … এক-দুই দিন, দিনে কি রাতে ঠিকমতো ঘুম না হলেই মনে হয় না জানি কতদিন ধরে ঘুমাই না! … মাথাটা কেমন ভার হয়ে থাকে! … সকাল সকাল অনেক কাজ … ঘুমিয়ে পরাটাই জরুরি …

কিন্তু আজকে আমার অনেক কথা লেখার ইচ্ছা ছিলো …

হয়তো কাল লিখবো … কিংবা আর হয়তো আজকে ঠিক যেভাবে লিখতাম সেভাবে লেখা হবে না … কিন্তু আজ আর একমুহুর্ত আমার শরীরের শক্তি নেই যে একটুখানি সময় নিয়ে বসে কথাগুলো লিখি …

কেমন জানি মেজাজ খিঁচে আছে … হঠাৎ করেই … প্রচণ্ড বিরক্ত হয়ে আছি, সিচুয়েশনগুলোর ওপর যতোটা, নিজের ওপর তার চেয়েও অনেক বেশি …নিজেকে এখন সবকিছুতেই অনেক বেশি ‘মিসফিট’ বলে মনে হয় … কেমন জানি! … মনে হয় যে ভালো কিছু নিয়ে ভাববার, সামনে কখনো একগুচ্ছ সুন্দর দিন আসবে এসব হাবিজাবি বিষয় নিয়ে ভাববার উপযোগিতা আর নাই আমার … কিসের ‘বিন্দাস লাইফ’ , কিসের কি! …

নেই … কিছুই নেই আর ভালো থাকার মতো … কিংবা আশেপাশের মানুষদের ভালো রাখার মতো …

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s