দিনযাপন | ১৭০৫২০১৫

সেদিন টাইমহপ-এ প্রায় ৬ বছর আগের একটা স্ট্যাটাস দেখে সেটা শেয়ার দিতে চাইলাম … কিন্তু কোনো এক অদ্ভুত কারণে ওই পোস্ট-টার নিচে কোনো শেয়ার অপশন পেলাম না … ভাবলাম যে দিনযাপনে ওই লাইনটা নিয়ে কিছু লিখবো, কিন্তু সেদিন দিনযাপনও লেখা হয়নি … আর কেন জানি এটাও মাথায় আসে নাই যে কথাগুলো কোনো একটা কাগজে লিখে রাখি! … ফলে, লাইনগুলো হারিয়ে গেছে … ভাবলাম যে আবার এক বছর পর টাইমহপের ওই দিনের ‘অন দিজ ডে’ পোস্টে ওটা দেখার জন্য অপেক্ষায় থাকতে হবে … কিন্তু আমার আবার স্বভাবগতভাবেই একটা জিদ আছে যে একটা কিছু মাথায় ঢুকলে যে কোনো উপায়ে সেটা করতেই হবে … ফলে ফেসবুকের টাইমলাইন ঘেঁটে ছয় বছর আগের ওই পোস্ট বের করার কষ্টসাধ্য পরিশ্রমটা করেই ফেললাম … তাও মাত্র দুইটা লাইনের জন্য …

” কি বাঁশি শোনাইলা পথিক, মন হইলো উতলা / কি গরল পান করাইলা, অন্তরে মোর মরণ জ্বালা ” … ২০০৮ সালের ১৪ মে তারিখে এই লাইন দুইটা লিখেছিলাম … ওইদিন টাইমহপের কল্যাণে এই লাইন দুইটা আবার চোখের সামনে আসার পর নিজেই কিছুক্ষণ কনফিউজড ছিলাম যে এটা কি আমারই লেখা ছিলো, নাকি অন্য কারো কথা আমি স্ট্যাটাস হিসেবে লিখেছিলাম … অনেকক্ষণ চিন্তাভাবনার পর কনভিন্সড হলাম যে লাইন দুইটা আমারই লেখা … তারপর নিজেই নিজের ওপর ইমপ্রেসড হয়ে গেলাম যে ‘ভালোই তো লিখেছিলাম!’ …

ওই সময়টায় বেশ নিয়মিত কবিতা লেখা হতো … এই দুইটা লাইনও হয়তো তারই অবদান …

সে সময়টাতে অনিক নামে একজনের সাথে আমার অনেক ভালো বন্ধুত্ব ছিলো … আর পারটিকুলারলি ২০০৮ সালের ওই সময়টায় রূপক নামের অনিকেরই আরেক বন্ধুর সাথে আমার কবিতায় কবিতায় কথা হতো … মানে, সে আমার টাইমলাইনে কবিতার ছন্দে একটা কিছু লিখতো, আমিও কবিতার ছন্দে সেটার উত্তর দিতাম তার টাইমলাইনে … আর অনিক তো নিয়মিতই কবিতা, গান এসব লিখতো … সেগুলো নিয়ে আমাদের কথাবার্তা হতো … তো আশেপাশে এরকম গান/কবিতা লেখা মানুষের উপস্থিতির কারণে আমার মধ্যেও একরকম কবি কবি ভাব চলে এসেছিলো … আমিও একটা দুইটা যা ইচ্ছা তাই কবিতা লিখতাম … আজকে এই লাইন দুইটা খুঁজতে গিয়ে সেরকম কিছু কবিতার দেখাও পেলাম … ফেসবুকে একসময় নিয়মিত ‘নোট’ লিখতাম, এখন যেমন ব্লগ লিখি সেরকম করেই … তো সেখানে একসময় নিয়মিত কবিতাও পোস্ট করেছি …

যাই হোক, ভালোই লাগলো কবিতাগুলো আবার পড়তে গিয়ে … মনে হলো যে, ‘ভালোই তো লিখতাম’! … টাইমহপ যেদিন কবিতাগুলোর কথা মনে করিয়ে দেবে, সেদিন না হয় শেয়ার করা যাবে …

এখন আর ওই কবি কবি ভাবটা নাই … এখন আর আমার ছন্দে ছন্দে ভাবনা আসে না … এখন যত ভালো গদ্য লিখি, কাব্যে আমি ততটাই দূর্বল … মাইন্ডসেট-টাই চেঞ্জ হয়ে গেছে …

তবে মাঝে মাঝেই অনেকে বলে যে আমার গদ্য লেখার স্টাইলে নাকি একটা কাব্যিকতা আছে … আছে কি নাই সেটা জানি না … অন্তত দিনযাপনে যে সেটা নাই, তা স্পষ্ট … গল্প লিখলে বোঝা যেতো …

অনেক বছর আগে একটা গল্প লিখতে শুরু করেছিলাম … গল্পটার শেষ অংশটা আর লেখা হয়নি … গল্পটার সফট কপিও নেই আমার কাছে … সামহোয়্যার ইন ব্লগে লেখা হতো তখন … ওখানে প্রথম তিনটা অংশ পোস্ট করা ছিলো … কিন্তু সামহোয়্যার ইন ব্লগের ইউজারনেম, পাসওয়ার্ড সবই ভুলে গেছি … ফলে ওখানে লগইন করে যে যাবতীয় লেখাগুলো উদ্ধার করবো সেই উপায়ও নাই … ফলে ওই গল্পটাও অসমাপ্ত অবস্থায় ওখানেই পড়ে আছে … গল্পটার ভাবনা যখন মাথায় এসেছিলো তখন মনে হয় যে ওইটা না জানি কি মাস্টারপিস লিখে ফেলবো … অথচ গল্পের শেষটা কখনোই ভিজ্যুয়ালাইজ করতে পারি নাই … ফলে গল্পটা শেষও করা হয় নাই … অনেকদিন পর যখন শেষটা কেমন হবে সেটার একটা দিশা পেলাম, তখন গল্পটাই নাই! …

ভাবছি এখানে ওয়ার্ডপ্রেসের ব্লগেই একটা আলাদা পেজ করে বিভিন্ন জায়গার বিভিন্ন লেখাগুলো একসাথে করবো … ফেসবুকে বিভিন্ন সময়ের অনেক লেখা আছে … কম্পিউটারে অনেক লেখা পড়ে আছে … সামহোয়্যার ইন ব্লগটা উদ্ধার করা গেলে ওখানেও বেশ কিছু লেখা পাওয়া যাবে …

আর আছে একগাদা ভাবনার লে-আউট … জীবনে কোনোদিন সেগুলো লেখা হিসেবে পয়দা হবে চিন্তা করা আছে … কিন্তু আদৌ কোনোদিন সেটা হবে কি না, সেটা নিয়ে আমার নিজের ওপর নিজের যথেষ্ট সন্দেহ আছে …

বাপ-দাদার কাছ থেকে বংশগুনে লেখালেখির অভ্যাসটা পেয়েছিলাম … কিন্তু সেটা ভেবেচিন্তে কাজে লাগানো হয়নি কখনো … যা লিখি, যেটুকু লেখালেখি করি, সবই সহজাত প্রবৃত্তি থেকে … আরও টুকটাক অনেক পজিটিভ বিষয় রক্তের মধ্যে মিশেছে, সেগুলোও চোখে পড়ার মতো করে প্রকাশিত হয়নি … তবে যতগুলো নেগেটিভিটি তাদের কাছ থেকে পেয়েছি, তার সবটুকুই ষোলোআনা প্রকাশিত হয়েছে, এবং হাইলি অ্যাক্টিভলি সেটা বজায় থেকেছে …

যাই হোক, এখন কথা হচ্ছে যে আমাকে ঘুমাতে হবে … দুপুর ২টায় ঘুম থেকে উঠবার একটা বাজে অভ্যাস তৈরি হচ্ছে … ভোরবেলা কাক-পক্ষীর ডাক শুনে ঘুমাতে যাই, আর ঘুম থেকে উঠি দুপুরের কড়া রোদ যখন গায়ের মধ্যে খোঁচাতে থাকে তখন … সেটা আর করা যাবে না …

সকাল দশটার মধ্যে ঘুম থেকে উঠে যাবার রুটিনে অভ্যস্ত হতে হবে … বাই অ্যানি মিন্স …

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s