দিনযাপন | ২৯০৬২০১৫

১১ঃ২০ -এ বাসা থেকে বের হয়ে বসুন্ধরা সিটির উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হলাম > ১১ঃ৩৫ -এ বসুন্ধরা সিটি পৌঁছালাম > ট্রাইপড কিনে সেখান থেকে বের হলাম ১২টার দিকে > ১২ঃ৩০ এর দিকে বসুন্ধরা সিটি থেকে সিএনজি-তে করে বিবিস’র অফিসে পৌঁছালাম > বিবিসি থেকে কাজ শেষ করে বের হলাম যখন তখন ১২ঃ৫৫’র মতো বাজে > সেখান থেকে মহাখালিতে ব্র্যাক সেন্টারের উদ্দেশ্যে সিএনজি নিয়ে পৌঁছালাম ১ঃ১৫’র দিকে> সেখানে ফরহাদ ভাইয়ের সাথে কাজ শেষ করে যখন কই যাবো, কি করবো ভাবতে ভাবতে তিন্নি আপুকে ফোন দিলাম যে সে অফিসে আছে কি না, তখন বাজে ১ঃ৫৬> তিন্নি আপু নাই দেখে ধানমণ্ডি ২৭ নম্বরে যাত্রায় আসবো ইরাদা নিয়ে সিএনজি ঠিক করলাম এবং যাত্রায় যখন পৌঁছালাম তখন বাজে প্রায় ২ঃ৩০ …

ঢাকা শহরে শেষ কবে এইটুকু সময়ের মধ্যে একটা কর্মব্যস্ত দিনে এতগুলা জায়গায় যাওয়া আসা করতে পেরেছি সেটা আমার মনে পড়তেসে না … তিন ঘণ্টায় চারটা জায়গায় গিয়েছি! … ভাবা যায়?

গতকয়েকদিনের টাইমহপের কল্যাণে একটা বিষয় খেয়াল করলাম … জুন মাসের শেষ ১৫ দিনের মধ্যে আমার প্রায় বছরেই বিভিন্ন ট্যুরে যাওয়া হয়েছে … একদম সারাজীবন মনে রাখার মতো বিশেষ ট্যুর … ২০১৩ সালে জাকিয়া আপা আর মহুয়া আপা’র সাথে কক্সবাজার গিয়েছিলাম …  তার আগের বছর তাপস দা, তার বোন আর সৌম্য’র সাথে কক্সবাজার যাওয়া হয়েছিলো … আমার প্রথম সমুদ্র দেখা … আবার ২০০৮ এও এইরকম জুনের শেষ দুই সপ্তাহের মধ্যেই বান্দরবান যাওয়া হয়েছিলো অনিমেষ দা এবং তার দলের সাথে … প্রথমবারের মতো নিজের দায়িত্বে একটা অনেক দূরের জায়গায় যাওয়া … প্রথম পাহাড় ভ্রমণ …

তিনটা ট্যুরই তাদের নিজস্ব আঙ্গিকতা নিয়ে বিশেষভাবে স্মৃতিময় …

ইনফ্যাক্ট, প্রতিটা ছোট – বড় ট্যুরই তো আমার কাছে একেকরকমভাবে স্মৃতিময় … কবে যে আমি যাবতীয় ট্যুর নিয়ে আমার ভ্রমণকাহিনীর সিরিজটা শুরু করতে পারবো! কলকাতা ডাইরি তো একদিন খুব উৎসাহ নিয়ে লিখতে শুরু করে তারপর আর ধরাই হলো না …

মিরপুরে গিয়ে থিতু হবার আগ পর্যন্ত আসলে ওগুলো কিছুই হবে না … যা বুঝতে পারছি …

তবে, থিতু হতে কবে নাগাদ সময় নিবো, সেটা এখনো জানি না …

দুইদিন যাবৎ রাফ খাতা নামের একটা সদ্যোজাত ফেসবুক পেজ-এ লিখছি … লেখা মানে ছোটো ছোটো যা খুশি তাই … ইনস্ট্যান্ট ছবির মতো ইনস্ট্যান্ট লেখা … সেটার বিষয়বস্তুও বাঁধাধরা কিছু নাই … আমি আমাকে নিয়েই লিখি … সেটার সাথে সমসাময়িক একটা কিছুকে কানেক্ট করি, কিংবা করি না … আপাতত বিষয়টা বেশ ইন্টেরেস্টিং লাগছে … কতদিন এই ইন্টেরেস্ট থাকে দেখা যাক …

তবে, আজকে আর লিখতে ইচ্ছা করছে না … ঘুম এসে পড়েছে এমনও না … কিন্তু ঘুমানোর আগে একটু মাথা হাল্কা করে ঘুমাতে চাই … একটা স্ক্রিপ্ট-এর অনুবাদ করতে হবে … সেটা একটু একটু করে পড়তে শুরু করি … কাল অবশ্য মুভিটা দেখে কাহিনীর সংক্ষিপ্ত ধারণা পেয়েছি … এখন মুভির সাথে যোগসাজশে স্ক্রিপ্টটা পড়ে বুঝতে হবে …

যাই হোক, আজকের মতো এখানেই শেষ করছি … ওভার অ্যান্ড আউট …

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s