দিনযাপন | ১৯০৭২০১৫

দুইদিন যাবৎ কি বৃষ্টি! ঈদ বিষয়টাই আমার জন্য আলসেমির, সেই সাথে বৃষ্টি যুক্ত হয়ে আলসেমিকে আরো বাড়িয়ে দিয়েছে … সারাদিন বাসায় শুয়ে বসে সিনেমা দেখছি আর ঘুমাচ্ছি …

বিগত অনেকগুলা বছর ধরেই ঈদের দিন মানে আমার জন্য দুপুর পর্যন্ত ঘুমানো, তারপর উঠে সিনেমা দেখতে বসা, নয়তো গল্পের বই পড়া, নয়তো বিকেলের দিকে কোথাও একটু সময়ের জন্য বের হওয়া … সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠে গোসল করে পরিপাটি হয়ে সেজেগুজে বসে থাকার ঈদ ছোটবেলায় ছিলো … বড় হওয়ার পর আস্তে আস্তে সেটা পরিণত হলো ‘ঈদ মানে ছুটি, সো সারাদিন ঘুমাও’ টাইপের রুটিনে … এমনিতেও ঈদে আমাদের বাসায় যে খুব গেস্ট আসে এরকম না … ইন ফ্যাক্ট, ঈদটা আমাদের জন্য এরকমই যে আমরা আমরাই ঘরের মধ্যে রান্নাবান্না করে খাওয়া-দাওয়া করি … অবশ্য মিরপুর যাওয়ার পর এইসব রুটিন পাল্টে যাবে … তখন দেখা যাবে ঈদের দিন সকাল সকাল উঠে ‘ভদ্রস্থ’ হয়ে বসে থাকতে হবে, কারণ জ্ঞাতি- গুষ্টি আত্মীয়-স্বজন সবই তো আশেপাশেই থাকে আর ঈদের দিন দেখা যাবে বিবির কাছে নয়তো চারুদের বাসায় যাওয়ার সাথে সাথে আমাদের বাসাতেও ঢুঁ মেরে যাচ্ছে … সেই অর্থে এবারের ঈদটাই আপাতত আমার সবচেয়ে আরাম করে আলসেমি করার ঈদ ছিলো …

গত কয়েকবছরের মধ্যে অবশ্য এক – দুইবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কামতার বাসায় ঈদ করতে গিয়েছি … টিয়াম প্রতিবছরই যেকোনো এক ঈদে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যায়, আর আমিও এর মধ্যে দুইবার জোট বেঁধেছিলাম … ওখানে গেলে আবার বেশ ঈদ ঈদ একটা পরিবেশের মধ্যে থাকা হয় … গ্যাস ফিল্ডের কোয়ার্টার , ওখানে সবাই আবার সবার বাসায় আসে-যায় … দেখা যায় যে ঈদের দিন -এর হইহুল্লোর ভালোই টের পাওয়া যাচ্ছে … গতবছরের রোযার ঈদটাও ভালো কেটেছে … ঈদের পরদিন ভুটান যাওয়া হয়েছিলো …

গত দুইদিন যাবৎ সময় কাটছে হ্যারি পটার সিরিজের সবগুলো সিনেমা একের পর এক দেখে দেখে … আগে তো যা যা দেখেছি সব ছাড়া ছাড়া ভাবে দেখা হয়েছে … এবার টানা দেখতে গিয়ে অনেককিছুই নতুনভাবে খেয়াল করছি, নয়তো অনেককিছু ভুলে গিয়েছিলাম সেগুলো মনে পড়ছে …

বৃষ্টি হবার কারণে বেরও হচ্ছি না … গতকালকে যেমন দুপুরে সিজার ভাইদের বাসায় যাওয়ার একটা দাওয়াত ছিলো, কিন্তু বৃষ্টি দেখে আর বের হতে ইচ্ছে করলো না …বিকেলে অবশ্য বের হয়েছিলাম … গ্রুপ হয়ে নায়ীমীদের বাসায় গেলাম, রানা, মেবিন আর আমি … সেখানে গিয়ে বৃষ্টিতে আটকা পড়ে বের হতে হতে রাত ১০টা বাজলো … আজকে সকাল থেকে তিন্নি আপুদের সাথে সিনেমা দেখবো, ঘুরবো এরকম প্ল্যান ছিলো কিন্তু বৃষ্টির জন্য সেই প্ল্যান কালকে ট্রান্সফার করা হলো … আর পরশুদিন থেকে আমার আবার মিরপুরের দৌড়াদৌড়ি শুরু হবে … ২৪/২৫ তারিখের দিকে যেহেতু চলেই যাচ্ছি, তার আগে গিয়ে গিয়ে কিছু জিনিস গোছগাছ করতে হবে নইলে বাকি যা জিনিসপত্র আছে সেগুলো রাখার জায়গা হবে না…

ঈদ বিষয়টা অনেক কারণেই এখন আর ভালো লাগছেনা … আমি ভাবছিলাম হয়তো ঈদ সংক্রান্ত ট্রমাটা কোরবানি ঈদের সময়ই ট্রিগারড হবে, যেহেতু সেইসময়ই সবচেয়ে ইন্টেন্স ঘটনাগুলো ঘটেছিলো … কিন্তু দেখলাম যে ঈদের আগে থেকেই এই ‘ঈদ’ শব্দটাই আমাকে অনেককিছু মনে করাচ্ছে বারবার … যেটুকু সময় সিনেমা দেখছি, কিংবা বাইরে থাকছি, সেইসময়টা অতটা ভাবাচ্ছে না, কিন্তু যে সময়টুকু চুপচাপ শুয়ে থাকি কিংবা ঘুমের জন্য অপেক্ষা করি তখন অটোমেটিক্যালিই চিন্তাগুলো মনের মধ্যে চলে আসে … ঈদের আগেরদিন ! আমার গতবছরও টিয়ামদের সাথে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাবার কথা ছিলো … আমি চাইলেই সকালবেলা ব্যাগ গুছিয়ে টিয়ামদের সাথে চলে যেতে পারতাম … তাতে কি হতো জানি না! … কিন্তু ওরকম হুট করে সবকিছু ঘটে যেতো না, আর আমার তারপর মনে হতো না যে আমি একটা ঘোরের মধ্যে থেকে কাজটা করেছি! … শুধুমাত্র কয়েকদিনের জন্য পালিয়ে যাওয়া আর একটা ঈদ সবকিছুকে পাল্টে ফেলতে পারতো … কি জানি! আসলেই হয়তো একটা ঘোরের মধ্যেই ছিলাম … শুধু ওই কয়টা দিন না, তার সাথে যে কয়দিন মেলামেশা ছিলো পুরোটা সময়ই হয়তো একটা ঘোরের মধ্যেই ছিলাম …

সে যাই হোক, বোঝাই যাচ্ছে যে ঈদ বিষয়টা আসলে সবসময়ই এখন আমার জন্য ওইসবকিছুর স্মৃতি বয়ে বয়ে নিয়ে আসবে … কোনোকিছু দিয়ে ওইটাকে ওভারল্যাপ করার উপায় নেই … যা করেছি, সেটা তো আর পাল্টানোর উপায় নেই … কেবল মনের মধ্যে যে অশান্তিটুকু আছে, সেটাকে নির্ভার করতে পারলেই আমার একটু শান্তি হতো … কিন্তু সেটা কিভাবে আদৌ সম্ভব সেটাই আমি জানি না …

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s