দিনযাপন | ১০০৮২০১৫

কতবছর পর যে একদম নিজের সাজানো-গোছানো টেবিল -চেয়ারে বসে ল্যাপটপে লিখছি মনে নাই … অন্তত ৩ বছর তো হবেই … যেই টেবিলটায় ল্যাপটপ রেখে বসেছি, সেটা তো এই বাসায় আসার আগে বহুদিন যাবৎ সেন্ট্রাল রোডে পাঁচতলায় ছিলো … ২০১২’র মাঝামাঝি জেম যখন সেন্ট্রাল রোডে থাকা শুরু করলো, তখন ওর কম্পিউটার রাখার জন্য এই টেবিলটা দিয়েছিলাম … উদ্দেশ্য ছিলো ঘরের জায়গা ফাঁকা করে একটা ওয়্যারড্রোব বানিয়ে সেই জায়গায় রাখবো … এবং, টেবিল উপড়ের তলায় চলে যাওয়ার সুবাদে আমার ওয়্যারড্রোবও হলো … এবং আমরা মিরপুরে আসার আগ পর্যন্ত সেভাবেই সবকিছু বহাল থাকলো …

এখন, মিরপুরে ওয়্যারড্রোব, টেবিল সবকিছু রেখেও অনেক জায়গা ফাঁকা আছে … আরও কতরকমের শেলফ, আলমারি কতকিছু রাখা যাবে! …

যাই হোক, আজকের দিনের প্রথম অংশ মোটামুটি টেবিল গোছানো, গতদিনের দিনযাপন লেখা এইসবেই কেটেছে … সন্ধ্যায় গ্রুপে যাবো বলে ঠিক করলাম … ৩টার দিকে মনে হলো যে এখন বাসায় বসে থাকলেই ঘুম পাবে, আলসেমি লাগবে, বরং রেডি হয়ে বের হয়ে যাই, লালামের বাসায় গিয়ে বিকেলের চা-নাস্তা খেয়ে তারপর গ্রুপের দিকে রওয়ানা দেই … লালামের বাসায় গিয়ে দেখি প্রমা’র আরেকটা দাঁত পড়েছে আজকে সকালে … দিন দিন ক্যামন চঞ্চল হয়ে যাচ্ছে … একেবারে দুষ্টু কিসিমের চঞ্চল … আমাকে এসে গাল টেপার ছলে এমনই খামচি মারলো যে গালে নখের দাগ বসে কেটেও গ্যালো! … কান কাটা রমজানের মতো এখন গাল কাটা প্রজ্ঞা হয়ে ঘুরছি … আঁচড়ের দাগের পরিমাণ খুব বেশি না, কিন্তু হাত লাগলে, টাওয়েল দিয়ে মুখ মুছতে গেলে জ্বলছে … দুই-তিন দিন একটু জ্বালাবে আর কি …

গ্রুপে গেলাম … আজকেও অ্যাজ ইউজুয়াল প্রায় দেড় ঘণ্টা লাগলো সিএনজি-তে … ভাবছি যে কালকে গেলে শো-এর আগ পর্যন্ত থেকেই যাবো কি না! … অবশ্য, ১২ তারিখে আবার একটা কাজে বনানী হয়ে বারিধারা যেতে হবে, ফলে সেটার জন্য মিরপুরের রুটই ভালো … দেখা যাক, কালকে না থাকলেও পরশু থাকবো … কলি আপুদের নতুন বাসার চেহারা-সুরত ক্যামন, বাথরুম ক্যামন সেটা তো এখনো দেখিইনাই … ফলে সিদ্ধান্ত নিতে পারছি না যে ওদের ওখানে থাকবো কি না … আবার ওদের বাসায় নাকি ১০টার মধ্যে ঢুকতে হয় … বেশি হইলে সাড়ে দশটা! আর আমরা তো গ্রুপ থেকে বের হয়ে চা খেয়ে আড্ডা দিতে দিতেই ১১টা বাজাই! … দেখা যাক! … আগামীকাল আসুক আগে! …

আজকে এটা-সেটা আলোচনা করতে করতে সিদ্ধান্ত নিয়ে নিলাম যে একটা সাইকেল কিনবো আগামী মাসে … তারপর সেটা চালানো শিখতে শুরু করবো … সাইকেল চালানোতে অভ্যস্ত হলে সাইকেল নিয়ে গ্রুপে যাওয়া- আসা করবো … ওই সাইকেল অমিতও চালাবে ভাগাভাগি-তে … আর তারপর আস্তে আস্তে টাকা-পয়সা জমিয়ে আমি আর অমিত মিলে শেয়ারে স্কুটি কিনবো একটা … ব্যাংক লোন নেয়ার উপায় থাকলে একটা লোন নিয়ে একবারেই স্কুটি কিনে ফেলতে পারতাম … কিন্তু আমি বা অমিত কেউই চাকরি করি না, মা’রও নিজের নামে লোন নিতে হলে এখন বেশ ঝামেলা হবে … ফলে টাকা- পয়সা জমিয়েই কিনতে হবে …

অবশ্য, সোহেলের কাছেই আমি যেই পরিমাণ টাকা পাই, সেইটা ও দিয়ে দিলেই তো আমার স্কুটির অর্ধেক টাকা উঠে যায় … বাকিটা না হয় ম্যানেজ করাই যেতো …

অবশ্য, শুধু সোহেলের কথাই বা কি বলবো? বেশিরভাগ মানুষই মনে হয় এরকমই … ৫০ হাজার টাকাই হোক আর ৫ হাজার টাকাই হোক, নেয়ার সময় খুব ডাউন টু আর্থ হয়ে বলবে যে খুব বিপদে পড়সি রে বইন, পারলে একটু দয়ে, হাতে টাকা আসলেই দিয়ে দেবো, অথচ মাসের পর মাস চলে যাবে, কিন্তু টাকা ফেরত দেবে না … টাকার কথা জিজ্ঞেস করলেই বলবে, ‘ এখন তো হাতে টাকা নাই … ( স্যাড ফেস ইমোটিকন)’ … সেটা মাসের প্রথমেই হোক, আর শেষেই হোক … তারপর তাদের ফেসবুক প্রোফাইল-এ দেখা যাবে যে প্রতি মাসেই তারা মোটামুটি ৫/৬ হাজার টাকা খাওয়া-দাওয়া’র পেছনে খরচ করছে, কিন্তু আমার টাকা ফেরত দেয়ার কথা বললেই তাদের হাত খালি হয়ে যায়! … সেই ফেব্রুয়ারি মাস থেকে একজনের কাছে ৫০০০ টাকা পাই … টাকা চাইতে চাইতে বিরক্ত হোয়ে ভেবেছিলাম যে আড় চাইবো না … কিন্তু লজ্জার মাথা খেয়ে আবারো ঈদের আগে আগে চেয়েছিলাম, প্রতিবারের মতো সেবারও বলেছিলো ‘হাতে তো এখন টাকা নাই, স্যালারি পাইলে দিয়ে দিবো নে’ … আগস্ট মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত চলে আসলো, এখনো মনে হয় সে স্যালারি পায়নাই! … মনে হচ্ছে এই সামান্য ৫ হাজার টাকার জন্যই তার সাথে আমার সম্পর্ক খারাপ হয়ে যাবে …

যাই হোক, সাইকেল কিনবো, এটাই আপাতত সিদ্ধান্ত …

আর সেই সাথে, আজকে বেশ ক্লান্ত লাগছে … বাসায় এসে প্রতিদিন শাওয়ারে দাঁড়িয়ে গা ভেজানোর সাথে সাথে মনে হয় যেন শরীর ছেড়ে দিয়েছে … শরীরের সব ক্লান্তি তখন ‘ ঘুমাও ! ঘুমাও!’ বলে নক করতে থাকে …

তারপরও তো আজকে যথেষ্ট রাত পর্যন্ত জেগে আছি! পৌনে তিনটা বাজে! …

যাই হোক, আপাতত দিনযাপনে ইস্তফা দেই এখানেই …

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s