দিনযাপন| ২০০৮২০১৫

দুপুর গড়িয়ে ৩টা বাজতে না বাজতেই গত দুইদিনের মতো ঝড়ো বাতাস আর বৃষ্টি … সকাল থেকে পরিকল্পনা ছিলো যে গ্রুপের দিকে যাবো, কিন্তু বৃষ্টির অবস্থা দেখে আর গতকালকের কথা মনে করে শেষপর্যন্ত সিদ্ধান্ত নিলাম যে এর চেয়ে ঘুম উত্তম! … গতকালকে তো যাওয়ার সময় ৫০ মিনিটের মধ্যে কলাবাগান পৌঁছে গেলাম, কিন্তু তারপরই এমন বৃষ্টি নামলো যে কাঁটাবন যেতে আরও ঘণ্টাখানেক লেগে গ্যালো … আর পুরোটা সময় সিএনজি’র ভেতরে বসে বসে দুইপাশের পানির ছিটায় ভেজা ভেজা হয়ে গেলাম … আসার সময় তো একে রাস্তা কাদা মাখা, তার মধ্যে টিপটিপ বৃষ্টি … আমি, অমিত আর সাথে আফসান … আমরা ল্যাব এইড পর্যন্ত গিয়ে সিএনজি নিলাম … রাত ১১টা বাজে তাও জ্যাম … তার মধ্যে আবারও ঝুম বৃষ্টি নামলো … সিএনজি দুনিয়াদারী ঘুরে যেতে যেতে বাসায় পৌঁছালাম ১২টা পার করে … ফলে, আজকে আর ভয়ে বেরই হলাম না …

তারওপর একদিন বাসায় থাকা মানে অন্তত ৪০০ টাকা সেভ! … এই মাসে তো মনে হয় এক সিএনজি ভাড়ার পেছনেই ৫-৬ হাজার টাকা খরচ হয়ে যাচ্ছে! … ২৩ তারিখ রাজা’র শো আছে, তারপর আবার ২৪-৩০ একটা ওয়ার্কশপের চিন্তাভাবনা চলছে … ওইটাতে সময় দিতে হলে চিন্তা করছি যে একবারে কয়েকদিনের জন্য ওই এলাকায় কোথাও গিয়ে থাকবো … ভাষাদের নতুন বাসা তো দেখা হলো না … আমি আরাম করে থাকতে পারবো কি না সেটাও তাই বুঝতে পারছি না … নায়ীমী তো এখন সকাল সকাল বাসা থেকে বের হয়ে যায়, আমি ওর বাসায় রাতে থাকলেও সকালে তো আর ৬টা সময় উঠে কোথাও যেতে পারবো না … এমনি এমনি ওর বাসায় থাকতে ক্যামন অস্বস্তি লাগবে না! … দেখি, এর মধ্যেই একদিন ভাষাদের বাসায় গিয়ে অবস্থা বুঝতে হবে …

কি অদ্ভুত ! এতবছর ধানমণ্ডি এলাকায় থাকলাম, আর এখন দেখা যাচ্ছে যে হুট-হাট গিয়ে থাকবো এরকম কারো বাসা নেই! … এটা কোনো কথা! …

যাই হোক, আজকে সকালবেলা আমার পড়ার টেবিল ভার্নিশ করার জন্য নিয়ে গ্যাছে, ফলে আবারও ল্যাপটপ নিয়ে আমার উদ্বাস্তু অবস্থা … আশা করি কালকে বিকালে টেবিল দিয়ে যাবে, তখন আবার সবকিছু গুছিয়ে বসা যাবে … আজকে অবশেষে আমার যাবতীয় বইয়ের কার্টন খালি হয়েছে, তবে ক্যাটাগরি অনুযায়ী বই গোছানোর কাজ এখনো শুরু করিনি … ঘরের সব শেলফে এখন খালি সুন্দর করে বই গোছানো, কিন্তু সেগুলো আবার একবার সময় করে বাছাই করে তাদের সঠিক ঠিকানা অনুযায়ী রাখতে হবে … যেমন, ফটোগ্রাফি আর আর্ট রিলেটেড বই একসাথে, গল্পের বই একসাথে, ডিকশনারি একসাথে … এইরকম আর কি! …

হিসেবে ভুল না হইলে গতবছর এইদিনেই সোহেলের মোবাইল হারিয়েছিলো … সিএনজি-তে নাকি পড়ে গিয়েছিলো … আমার জন্য (!) সৌভাগ্যের বিষয় এটাই ছিলো যে ওর আইফোন হারায় নাই … সে কারণে পরের মাসে যখন ‘আই ফোনের ওপর অনেক প্রেশার পড়ছে’ বলে নতুন আরেকটা ফোন কিনেছিলো ১৬ হাজার টাকা দিয়ে, তখন আমার পকেট থেকে ৬ হাজার টাকা গিয়েছে … নইলে হয়তো নিজের রক্ত বেচে হইলেও ৫০ হাজার টাকা জোগাড় করে তাকে নতুন আই ফোন কেনার জন্য দিতে হতো … কিছু কিছু মানুষ পারেও! … ফেসবুকে প্রায়ই একটা উক্তি দেখি, ‘ কিছু মানুষ এরকম হয় যে কলিজাটা বের করে তাদের হাতে দিলেও তাতে তারা সন্তুষ্ট হবে না … বলবে হাতে দিলা ক্যান? পিরিচে করে দিলা না ক্যান?’ … যখনি আমি উক্তিটা পড়ি, তখনি আমার সোহেলের কথা মনে হয়! … আমার সাথে ওর আচরণ তো সেরকমই ছিলো সবসময়! …

গতবছরের আগের বছর, আই মিন ২০১৩ সালের এই দিনটা মজার ছিলো … নাসের ভাই আমেরিকা চলে যাওয়ার আগের দিন আমাদের কয়েকজনকে ফেয়ারওয়েল ট্রিট দিয়েছিলো … ইথার ভাই, মুগ্ধ, ফেরদৌস এরকম আরও দুই-একজন … বনানী স্টারে … সেখান থেকে আমরা আবার আইসক্রিম খেতে গিয়েছিলাম নিউজিল্যান্ড ন্যাচারালে … ওই ট্রিট-টা কি ইথার ভাই দিসিলো কিনা মনে নাই … নাসের ভাই -এর সাথে আমার যোগাযোগের জায়গাটা বেশ ইন্টেরেস্টিং … হঠাৎ হঠাৎ একদিন কিছুক্ষণের জন্য কথা হয় এরকম … পাঠশালায় পড়ার সময়ও তার সাথে এরকমই হঠাৎ হঠাৎ কথাবার্তা হইতো … যাওয়ার আগে ফেয়ারওয়েল ট্রিট দেয়ার জন্য যে আমাকেও ডাকবে এইটা আমার চিন্তায়ও আসে নাই … সে কারণে খুব ভালো লাগসিলো ব্যাপারটা … আজকে টাইমহপ ঘটনাটা মনে করায় দিলো … মনে হইলো যে ঘটনার দিন-তারিখ মনে রাখার পাকাপোক্ত উপায় হিসেবে দিনযাপনে লিখে রাখি …

অনেক ক্ষুধা লেগে গ্যালো … খাওয়াদাওয়া করে হাল্কা একটা গোসল দিয়ে ঘুমায় পড়তে হবে … কালকে সকাল থেকে অনেক কাজ …

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s