আপনাকে বলছি! শুনছেন?

IMG_5775 (2)

জ্বি ভাই, আপনাকেই বলছি … একটু মন দিয়ে শোনেন …

আগে নিজের পরিচয়টা দেই, নাকি? …

আমি নিজেকে মানুষ বলেই জানি, চিনি … আমার বায়োলোজিক্যাল আইডেন্টিফিকেশনের কথাই যদি ধরেন, তাহলে মেল সেক্স না ফিমেল সেক্স সেইটা বিবেচ্য হবার আগে আমার ‘হোমো সেপিয়েন্স’ পরিচয়টাই কিন্তু আগে বিবেচনা করা হবে … তো, আপনিও তো মানুষ, তাই না? …

এখন দ্যাখেন, মানুষ হিসেবে আমি কিন্তু বেশ ব্যস্তই বলতে পারেন … আমি একটা স্কুলে পড়াই, সেখান থেকে বের হয়ে সপ্তাহে অন্তত ৪ দিন টিউশনিতে যাই, সন্ধ্যায় আবার আমার নিজেরই ক্লাস থাকে … আবার একইসাথে আমি দেশের প্রথিতযশা একটি থিয়েটার গ্রুপে কাজ করি … ক্লাস শেষ করে তো থিয়েটারে ঢুঁ মারিই, যেদিন ক্লাস থাকে না, সেদিনও এমনিতেই যাই …

তারপর ধরেন, এই যে থিয়েটারের ফ্লোরে যাই, সেখান থেকে বের হতে হতে মোটামুটি ১০টা … তারপর সামনের গফুর মামা’র দোকানে দাঁড়িয়ে সবাই মিলে আরো আধাঘণ্টা আড্ডা না দিলে তো আমাদের মনই ভরে না … সেখান থেকে রওনা দিতে দিতে সাড়ে ১০টা পার, আর বাসায় ফিরতে ফিরতে ১১টা, কখনো কখনো সাড়ে ১১টা কি ১২টা তো বাজেই …

এখন বলেন ভাই, জাস্ট বিকজ আমি একজন মেয়ে, জাস্ট বিকজ আমি থিয়েটার (জেনারেল সেন্সে আর্ট-কালচার) করি কিংবা জাস্ট বিকজ আমি রাতের বেলা প্রায় ১৫ কিলোমিটার রাস্তা একা একা সিএনজি করে যাই বলেই আপনার নুনুর আগায় কুড়কুড়ানি শুরু হয়ে যাবে? আর সেই কুড়কুড়ানি সহ্য করতে না পেরে আপনি আমাকে রাস্তায় একা পেয়ে রেপ করবেন, তারপর আবার গলা কেটে ফেলেও রেখে যাবেন যাতে আপনাকে ধরিয়ে দেয়া আমার পক্ষে আর সম্ভব না হয়? …

হ্যাঁ, এটা সত্যি যে আমরা জানি না তনুকে যে বা যারা মেরেছে, তাতে কোনো ব্যক্তিবিশেষের বা কোনো ব্যক্তিগত ঘটনার পূর্বসূত্রিতা আছে কি না … তো, সেটা থাকুক, বা না-ই থাকুক … একটা মেয়েকে রেপ করে তারপর খুন করে ঝোপের আড়ালে ফেলে রেখে যাওয়া তো কোনো সুস্থ-স্বাভাবিক ঘটনা হতেই পারে না! হতেই পারে তনুর খুন-টা টার্গেটেড … আবার হতেই পারে জাস্ট রেন্ডম নুনুর কুড়কুড়ানি মেটানোর জন্য ধড়পাকড় …

যেটাই হোক না কেন … এটা একটা খুন … আর আপনি একজন ‘মানুষ’ হিসেবে কিভাবে একটা খুনকে মৌন থেকে মেনে নিচ্ছেন? … আজকে যদি আপনার পরিবারের কেঊ, আপনার কোনো বন্ধু, কিংবা আপনার প্রেমিকা, কিংবা ধরেন পাশের বাড়ির অপরিচিত মেয়েটাই রাতের বেলা একা একা বাসায় ফিরতে গিয়ে পূর্ব-পরিকল্পিতভাবে কিংবা অতর্কিতেই রেপ হয়, খুন হয়ে যায় … তখন আপনি কি করবেন? … চুপ করে থাকবেন? …

আপনি কি জানেন, বোঝেন, অনুভব করেন যে আপনার এবং আপনাদের এই চুপ করে থাকা আমার এবং আমাদের ‘মেয়ে’ পরিচয়কে শঙ্কিত করে দেয়? … আমরা ভয় পাই … আমরা ‘মেয়ে’ বলে না … আপনারা ‘মানুষ’ না বলে! … কারণ মানুষ হিসেবে আমি বা আমরা তো আপনাকে আমার, আমাদের সাথে মেলাতে পারি না! … একজন তনু যখন এভাবে রেপ হয়, খুন হয়, তখন আপনাদের তো সবার আগে প্রতিবাদ করে উঠতে দেখি না, ভীষণ রাগে কাঁপতে দেখি না, প্রচন্ড ক্ষোভে-অভিমানে কাঁদতে দেখি না! … এই বাংলাদেশে প্রতিদিন এরকম জানা-অজানা অনেক তনু রেপ হচ্ছে, এমনকি খুনও হয়ে যাচ্ছে … কই? আপনাকে তো দেখি না রাস্তায় দাঁড়িয়ে গিয়ে খুব আক্রোশে চিৎকার করে উঠতে ! …

বলতেই পারেন যে নিজে থিয়েটার করি বলেই তনুর খুন হয়ে যাওয়াটা গায়ে লাগছে বেশি … একা একা রাত ১১টা/১২টায় বাড়ি ফিরি, সেজন্যও এত বকছি – সেটাও বলতেই পারেন …

কিন্তু আপনি কি এটা জানেন যে তনু’র খুন হওয়াটা আসলে এতদিনের জমে থাকা অনেক ক্ষোভ- রাগ- শঙ্কা- ভয়কে সামনে ঠেলে বের করে এনেছে ? তনু খুন হবার আগে গত এক বছরে আরো কয়েক শ’ মেয়ে রেপ হয়েছে খেয়াল রেখেছেন? যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে ক’জন তা জানেন? …

এই তো, গত পহেলা বৈশাখেরই তো ঘটনা … আপনার কি মনে হয় ? এই বছর আমার আর ইচ্ছা করবে ওই এলাকায় যাবার? কিংবা গেলেও আমার সারাক্ষণ মনের মধ্যে ভয় কাজ করবে না যে আমার সাথেও যদি এমন হয়? …

আমাকে এভাবে ভীত করে দিয়ে দেশের অন্যতম সেক্যুলার ফেস্টিভাল থেকে দূরে সরিয়ে দেবার দায় নেবেন আপনি?

আচ্ছা, কখনো যদি কোনো এক সকালে ঘুম ভেঙ্গে দেখেন এই দেশে আপনি আছেন ‘মেয়েদের’ অবস্থানে, আর মেয়েরা ‘পুরুষের’ … তখন কি করবেন? … মেয়েরা চলতে ফিরতে রাস্তায় হাঁটতে গিয়ে আপনার নুনুটা টিপে দেবে, আপনার নুনুতে হাত দিয়ে যাবে কিংবা ড্যাবড্যাব করে ওইদিকে তাকিয়ে থেকে বলবে ‘ উফ! কি নুনু রে!’ … কেমন লাগবে আপনার বলেন তো? … জাস্ট ইম্যাজিন! রাত ১১টা সময় একটা নির্জন রাস্তা দিয়ে একা বাড়ি ফিরছেন আর হুট করে কোথা থেকে তিন/চারটা মেয়ে এসে আপনাকে রেপ করে গেলো … এমনকি আপনি যাতে তাদের কথা বলতে না পারেন, সেজন্য আপনাকে খুন করে ফেলে রেখে গেলো! … নিজেকে একবার ওরকম একটা জায়গায় নিয়ে কল্পনা করে বুঝতে পারবেন অনুভূতিটা কি ভয়াবহ এবং একই সাথে গা গুলিয়ে আসার মতো বিরক্তিকর? …

হ্যাঁ … বলতেই পারেন যে আমি তো টিপিক্যাল মেয়ে না … ইন ফ্যাক্ট, আমার মধ্যে তো মেয়েসুলভ আচার-আচরণের উপস্থিতিই কম! … কিন্তু, এটাই এখন সত্যি যে প্রচণ্ড স্বাবলম্বী মেয়ে হবার পরেও আমি ভয় পাই … নিজেকে নিয়ে আমার ভয় না … আমার ভয় আপনাকে … এবং আপনাকে নিয়ে … আমার ভয় আমার সমাজব্যবস্থাকে … এবং সমাজব্যবস্থাকে নিয়ে …

কেন জানেন? কিছু একটা হলে আপনারা আমার এই ‘স্বাবলম্বী’ হওয়াকেই দুষবেন … আমার মধ্যে ‘মেয়েসুলভ’ আচরণ কম থাকাকেই দুষবেন … আর কথা বলবেন এক কান থেকে পাঁচ কান করে … আমার লাইফস্টাইল নিয়েই! …

কারণ … আপনি পুরুষত্ব খাটান আপনার নুনুর জোর দিয়ে … মনের জোর বা বুদ্ধির জোরে না …

অথচ দ্যাখেন … তনু খুন হবার আরো আগে থেকেই আমি ভয়ে ভয়ে বাড়ি ফিরি … ভিড়-ভাট্টার মধ্যে যাই না … পাবলিক বাসে একা উঠি না … অপরিচিত জায়গায় যেতে হলে কাউকে সাথে নিয়ে যাই … এমনকি পরিচিত মানুষদেরও অনেককেই অনেকসময় বিশ্বাস করতে ইতস্তত করি! …

জ্বি ভাই … আবারো বলছি … বারবার বলবো … আপনার নীরবতাই আমাকে ভীত করে … আমি ভয় পাই এটা ভেবেই যে আপনি চুপ করে আছেন মানে আপনিও সেই দলেরই একজন হতে পারেন … সেরকমই একজন … যার বুদ্ধি মাথায় নয়, নুনুর আগায় …

প্রজ্ঞা , ২৫ মার্চ ২০১৬, শুক্রবার

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s