দিনযাপন । ২৪০৪২০১৬

গরমের আর মনে হয় সীমা-পরিসীমা নাই … ঢাকা শহরেই ৩৯ ডিগ্রি পর্যন্ত মনে হয় তাপমাত্রা উঠেছে … হিউমিডিটি ৭০% … এই গরমে আমার মতো শহরময় টোটো করে ঘুরে বেড়ানো মানুষ পর্যন্ত অসুস্থ হয়ে যাওয়ার ভয়ে বাসায় বসে আছি! … উপায়ও নাই … রোদের মধ্যে বের হলেই মনে হচ্ছে গরমে চামড়াসুদ্ধা সেদ্ধ হয়ে যাচ্ছে! … গত দুইদিন তো বেরই হই নাই … শুক্রবার বিকালে বের হয়ে একটু শিল্পকলার দিকে গেছি … এইটুকুই … আজকে সকালে স্কুলে গেলাম … দুপুরে এমনই মাথা ব্যথা শুরু হলো যে আর কোনোদিকে না তাকিয়ে সোজা বাসায় চলে আসলাম …

যাই হোক, হঠাৎ করেই গত দুই/তিনদিন যাবৎ বেশ উইথড্রয়াল সিন্ড্রমের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি … কিছুই ভালো লাগতেসে না টাইপের উইথড্রয়াল সিন্ড্রম … মাঝে মাঝেই আমার মধ্যে এই চিন্তা ভর করে আমি মনে হয় বেশিদিন বাঁচবো না … আর এই চিন্তা মাথায় আসার সাথে সাথে আমি কেমন জানি স্কেপটিক্যাল হয়ে যাই! মনে হয় যে বাঁচবোই তো না! এট কিছু করে কি হবে! … বাদ দেই! … বাসায় বসে ঘুমাই! … বেশিদিন বাঁচবো না চিন্তার পেছনে এখন আবার বড় মোটিভেশন হিসেবে কাজ করে ইউটেরাস-এর টিউমারটা … প্রায়ই আমার বন্ধুস্থানীয় কলিগরা আমাকে শাসন করে এই বলে যে এইটা যদি ক্যান্সারে টার্ন নেয় তাহলে তুই কি করবি? … আমি তখন খুব রিলাকটেন্টভাবে জবাব দেই – কি আর হবে? মরে যাবো! … এই টিউমার আমি জিদ করে পুষলেও যা ফলাফল হবে, ফেলে দিতে গেলেও তার থেকে খুব বেশি উপকার কিছু হবে না … যেইরকম অবস্থা এটার, তাতে এটা ইউটেরাস সহ ফেলে দেয়াটাই সবচেয়ে ভালো … তখন জীবনের একটা সম্ভাবনা পুরোপুরিই শেষ হয়ে যাবে … আর হরমোনাল ইফেক্ট-এর কথা না-ই বললাম … আর যদি এটা পুষতে থাকি, তাহলে হয়তো বা এটা ক্যান্সারে টার্ন নেবে, হয়তো বা না … এখন যেমন হরমোনাল ইম্ব্যালেন্স এর কারণে কষ্টকর একটা শরীর নিয়ে ঘুরছি, সেটাই চলতে থাকবে … এইসব ভাবতে গেলে মনে হয়, মরে গেলে মরে গেলাম! কি আর হবে! …

সেই স্কুলজীবনেই একসময় ঠিক করেছিলাম যে ৪০তম জন্মদিন পার হয়ে গেলেই স্বেচ্ছামৃত্যু টাইপের একটা কিছু করে মরে যাবো! … সোজা কথায়, ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়’ টাইপের একটা বাণী দিয়ে সুইসাইড! সেটাও যদি করি, তাও তো আর ৯ বছরের মতো বাকি! ৯টা বছর দেখতে দেখতেই চলে যাবে! …

আর এখন আসলে এমন একটা সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি, যেখানে বেঁচে থাকাটাই অবাক হবার মতো … কখন কাকে কি ইস্যুতে মেরে ফেলা হবে, কেউই জানে না! … আর এখন তো ব্লগার ইস্যু হচ্ছে হাই রিস্ক ইস্যু … ব্লগ লিখলেই হলো … নাটক – সিনেমার সাথে যুক্ত থাকলেই হলো … এইসব মানেই ইসলাম-বিরোধী … গতকালকেই রাজশাহী ইউনিভার্সিটির ইংরেজি সাহিত্যের একজন প্রফেসরকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে মেরেছে উনার নিজের ক্যাম্পাস প্রেমেসিস-এর মধ্যেই! কি ভয়ঙ্কর! … এর আগেই আজিজ সুপার মার্কেটে ঢুকে সবার সামনে এক প্রকাশককে মেরে ফেললো … এরকম আরও উদাহরণ দেয়া যায় … একেকটা খবর পড়ি আর নিজেকে আরো অসহায় লাগে … কি একটা সময়ে বাস করছি … কি একটা দেশে বাস করছি!  … বিদেশে চলে গিয়ে একরকম পালিয়ে বাঁচা যায় … কিন্তু তাতে করে কি দেশটা পাল্টাবে? … এভাবে জোর করে কি একটা সমাজে ধর্ম চাপিয়ে দেয়া যায়? … ধর্ম তো খুবই ইনডিভিজ্যুয়াল বিলিফ-এর বিষয় … অথচ এই ধর্ম নিয়েই কত রাজনীতি … ধর্ম নিয়েই কত কোন্দল …

ঊফ! গরমের চোটে দিনযাপন লিখতেও ভালো লাগছে না … কেমন জানি ঘুম ঘুম ভাব নিয়ে ঘুরছি … বিকাল বেলা প্রায় ঘণ্টা দুই-এর বেশি ঘুমালাম … তাও মনে হচ্ছে আবার ঘুমিয়ে থাকি … গতকালকেও রাতে ৯টার দিকে এমনই ঘুম আসলো যে এক ঘুমে রাত কাবার করলাম … আজকেও কি একই অবস্থা হবে নাকি কে জানে! …

দুপুরে বাসায় ফিরে গোসল করলে বোধহয় ভালো লাগতো … কেন জানি করলাম না … এখন এই রাত সাড়ে ১১টা সময় গোসল করলেও তো চুল ভেজাতে পারবো না … চুল শুকাবেও না … উল্টা ঠান্ডা লাগবে … চুলগুলা বয়কাট করে ফেলতে পারলে মনে হয় আরাম হতো! … চুল থেকে মনে হয় ভাপ বের হচ্ছে! …

এর মধ্যে আবার গরমের জন্য স্কুলেরও ক্লাসের টাইমিং কমিয়ে দিয়েছে … সেইটা আবার আমার জন্য একরকমের পেইনফুল হয়ে গিয়েছে কারণ আমার এখন বাসা থেকে বের হতে হয় আরো ৪৫ মিনিট সময় আগে হিসাব করে! … ফলে সকালবেলাও ঘুম থেকে উঠবার তাড়া … রেডি হওয়ার তাড়া … কালকে তো মনে হয় সকালে ৮টা সময় বের হয়ে যেতে হবে … কারণ স্কুলেই পৌঁছাতে হবে ১০টার মধ্যে … আর এই সময়গুলা হচ্ছে রাস্তায় পিক আওয়ার … কি যে জ্যাম হয়! …

সাথে ছাতা আর হাতপাখা রেখেও শান্তি হয় না … মনে হয় যেন গায়ে এসি ফিট করে যদি চলা যেতো তাহলে বেশ ভালো হতো! …

ধুর! আর লিখবো না … বসে থাকতেই আর ভালো লাগছে না … গোসল না করলেও গায়ে পানি দিলে বোধহয় ভালো লাগবে … তাই করি গিয়ে … তারপর ঘুমায় থাকি … সকালবেলা উঠতে হবে … ৬টা সময় … কালকে আবার ক্লাসও আছে … শান্তি পাবো না কালকে আর! …

এই গরমে স্কুলটা ছুটি দিয়ে দিতো যদি! … কোনোরকমে বিকালবেলা বের হয়ে ক্লাসে যেতাম! .

ধুর ! শেষ করি …

বাই দ্য ওয়ে, গতবছরের দিনযাপনের লিঙ্ক –

২৩০৪২০১৫

https://prajnatrubayyat.wordpress.com/2015/04/24/%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%a8%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%aa%e0%a6%a8-%e0%a7%a8%e0%a7%a9%e0%a7%a6%e0%a7%aa%e0%a7%a8%e0%a7%a6%e0%a7%a7%e0%a7%ab/?fb_action_ids=10155450151920655&fb_action_types=news.publishes&fb_ref=pub-standard

২৪০৪২০১৫

https://prajnatrubayyat.wordpress.com/2015/04/25/%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%a8%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%aa%e0%a6%a8-%e0%a7%a8%e0%a7%aa%e0%a7%a6%e0%a7%aa%e0%a7%a8%e0%a7%a6%e0%a7%a7%e0%a7%ab/

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s