দিনযাপন । ৩১০৮২০১৬

অতঃপর পরীক্ষা শেষ হলো! আজকে না অবশ্য, গতকালকে … জাপানিজ স্টাডিজের একটা সেমিস্টার শেষ! … আরো বাকি ৩ সেমিস্টার … ২০১৭’র ডিসেম্বর নাগাদ শেষ হবার সম্ভাবনা … আরো দেড় বছরের মামলা! আমি কালকেই ভাবছিলাম যে আমার ধৈর্য্য থাকলেই হয় … আর প্রতি ৬ মাস পরপরই ইদানীং লাইফে কতরকমের টার্নওভার আসে … এই বছরের ডিসেম্বর আসতে আসতেই কি হয় কে জানে! … আগামীকালের কথাই তো বলতে পারি না আমি, আর দেড় বছর! আমার জন্য দেড় বছর পর কি হবে সেই ভাবনাটা আসলে একটু বেশিই বিলাসিতা! … সাচ অ্যান আনপ্রেডিক্টেবল লাইফ আই হ্যাভ!

যাই হোক, সেমিস্টার ফাইনাল শেষ, এখন ঈদের আগে আর ক্লাস নাই, এটাই বড় কথা! মোটামুটি সেপ্টেম্বর ১৭/১৮ পর্যন্ত আমার কেবলমাত্র স্কুল ছাড়া আর কোনো রুটিন ব্যস্ততা নাই … এর মধ্যে আমার অবশ্য ফরহাদ ভাইয়ের জন্য স্ক্রিপ্ট-এর কাজ করতে হবে … মাস দু’এক আগে উনার সাথে আলোচনা হয়েছিলো, কিছুটা ভেবেছিও … এবার সেটা কাগজে-কলমে লিখতে বসতে হবে … আর সেই সাথে আছে মুনির ভাইয়ের ফটোগ্রাফির বইয়ের অনুবাদ … উনার সাথেও মাসখানেক আগে কথা হয়েছিলো, কিন্তু এর মধ্যেই নেটবুক নষ্ট হলো, সার্ভিস সেন্টারে দিয়ে আসলাম, সে কারণে এক নাম্বার এপিসোডটাও আর পাঠানো হয় নাই … এই ছুটিতে যদি ১ আর ২ নাম্বার চ্যাপ্টার উনাকে পাঠিয়ে দিতে পারি, তাহলে বাকিগুলাও একটা ফ্লো-এর মধ্যে শেষ করা যাবে … কাজটা নিয়ে এতদিন ঝুলিয়ে রাখছি, এখন নিজেরই বিরক্তি ধরে যাচ্ছে! …

যাই হোক, আজকে হরতাল ছিলো বলে পরীক্ষা শেষে আরাম করার জন্য একটা এক্সট্রা দিন পেয়ে গেলাম। গতকালকেও অবশ্য স্কুলে যাই নাই … পরীক্ষার পড়ার জন্য সকালবেলাটা যাতে কাজে লাগানো যায় সেজন্য ছুটি নিয়েছিলাম … এর মধ্যেই জানলাম যে আজকে আবার হরতাল … বেশ দুইদিন ছুটি কাটানো হয়ে গেলো আমার! … কালকে তো সকাল থেকে মনে হয় কাজ করতে করতে মাটিতে শুয়ে পড়ার অবস্থা হবে স্কুলে! … গতকালকে যে যাই নাই, ৪টা ক্লাস ছিলো, ৪টা ক্লাসেরই কোয়েশ্চেন আন্সার লিখতে দিয়ে আসলাম ক্লাস টাস্ক হিসেবে … আজকে গেলে তো তাও দুইটা সেট দেখা হয়ে যেতো, এখন কালকে তো স্কুলের পর যতক্ষণ পারি থেকে কিছু কাজ আগানো লাগবেই, শনিবারেও যথেষ্ট সময় হাতে নিয়ে যেতে হবে … প্রতি শনিবার স্কুলে গিয়ে কাজ শেষ করাটা বেশ একটা রুটিন হয়ে গেছে ইদানীং! … কোথা থেকে যে এত কাজ এসে জোটে! তাল পাইনা কিছুরই! …

আজকে গ্রুপে গিয়েছি অনেকদিন পর … বর্ষার গান নিয়ে একটা প্রোগ্রাম হবে হবে করে শেষমেশ শরতে এসে হলো! … ভাদ্র মাসে শ্রাবণের গান! … ব্যাপারটা ভাবতেই কেমন মজা লাগে … প্রোগ্রামটা বেশ ভালো হয়েছে … যেই গানগুলো সবগুলারই কম্পোজিশন বেশ ভালো লাগার মতো হয়েছে … অমিতও দেখলাম মন্দিরা, গিটার, শেকার অনেককিছুই বাজালো দলের সাথে … ভালোই লাগলো! … আমার ভাই প্রাচ্যনাটে ঢুকলো, আর আমিও ইনঅ্যাক্টিভ হয়ে গেলাম! … এদিকে ও এখন বেশ অ্যাক্টিভ … ভালোই রিপ্লেসমেন্ট! … আমার এখন আর প্রাচ্যনাটের ফ্লোরে গিয়ে দাঁড়ালে আগের মতো বিলংগিংনেস আসে না! মনে হয় না যে এটা আমার জায়গা! … মানুষগুলাই এখন কেমন কেমন, নাকি আমারই চিন্তার জায়গা পাল্টেছে বুঝি না! … যেসব মানুষদের সাথে আড্ডা-গল্প-কাজ ভালো লাগতো, তাদের অনেকেই এখন ইনঅ্যাক্টিভ, আর অনেকের সাথে আমার কথাই বলতে ইচ্ছা করে না … মনে হয় যে চোখের সামনে তাদের পালটে যেতে দেখেছি … কিংবা হয়তো তারা এমনই ছিলো, আমিই বুঝি নাই … এখন বয়সের পরিপক্কতার কারণে বুঝতে পারছি! … আজকে অনেকদিন পর গ্রুপে গেলাম, অথচ অনেক মন খারাপ করা অনুভূতি নিয়ে বের হলাম … আগে গ্রুপে একটা প্রোগ্রাম হওয়া মানে সবাই কত উৎসাহ নিয়ে আসতো … আর আজকের প্রোগ্রামে দর্শক বলতে স্কুলের লাস্ট দুই ব্যাচের শিক্ষার্থীরা আর সাথে কয়েকজন হাতে গোনা গ্রুপ মেম্বার … তাও আবার একদম সিনিয়ার মেম্বারদের কেউই নাই! … আবার সেই প্রোগ্রাম নিয়ে কথা বলতে উঠে পার্টের চোটে কেউ প্রোগ্রামের নামটাই ঠিকমতো বলতে পারে না … কি এমব্যারেসিং! … অবশ্য আমার কাছে এমব্যারেসিং লাগছে দেখে যে গ্রুপের আর কারও এমনটা লাগবে তা না … গ্রুপের বেশিরভাগ মানুষের সাথেই ইদানীং আমার আইডিওলজি মেলে না … নিজেকেই মনে হয় এলিয়েন! …

আরো দুই-একটা কারণেও গ্রুপে গিয়ে মন খারাপ হলো … ঠিক যেই সিচুয়েশনটা অ্যাভয়েড করার জন্যই ভাবছিলাম যে নিজেই যতটা দূরে থাকি তাই-ই ভালো, সেই সিচুয়েশনেই নিজেই যেচে পড়ে যেন পড়ে যাই! … জানি যে একজন আমার সাথে আগের মতো স্বাভাবিকভাবে কথা বলবে না, নিজে থেকে এসে কেমন আছি জানতেও চাবে না, এমনকি সে কেমন আছে, কি অবস্থা জিজ্ঞেস করলেও খুব দায়সারা উত্তর দেবে, তারপরও আমি আশা করি যে এতদিন পরে গ্রুপে যাচ্ছি, দেখা হলে এখন হয়তো আর এক মাস আগের অস্বস্তিটা তার মধ্যে থাকবে না … যে কোনো কারণে কারো সাথে এরকম অস্বস্তিমূলক সম্পর্ক তৈরি হওয়াটা আমার পছন্দ না … আর যেখানে কোনোরকম অস্বস্তিমূলক সম্পর্ক তৈরি হওয়ার ক্ষেত্রে আমার ভূমিকা কম, অথচ আমাকেই এখানে সবচেয়ে বেশি অস্বস্তিতে পড়তে হয়, সেটা আমার আরো অপছন্দ! … বিশেষ করে একটা মানুষ যখন সবচেয়ে কাছের সার্কেলের-ই একজন হয়, তখন তার সাথে অস্বস্তিমূলক ইন্টারঅ্যাকশনে যেতে হবে মনে হলেই আর সেই সার্কেলে যেতে ইচ্ছা করে না … মনে হয় যে, থাক ! নিজেই দূরে থাকি! … মনে হতে থাকে যে আমি আশেপাশে আছি দেখেই হয়তো অস্বস্তির চোটে সেই ব্যক্তি দূরত্ব বজায় চলছে! … বাসায় ফেরার পথে সিএনজিতে বসে বসে ভাবছিলাম, এখন কি প্রাচ্যনাটেও আমার তাই-ই করতে হবে? … জানি না! … আজকে যেই পরিমাণ মন খারাপ নিয়ে গ্রুপ থেকে বের হয়েছি, তাতে নিজে ভালো থাকার জন্য হলেও হয়তো এটাই করা উচিৎ … যার কারণে এত অস্বস্তি, তার সাথে যত কম ইন্টারঅ্যাকশন হবে কিংবা ইন্টারঅ্যাকশনের সুযোগ হবে, ততই নিজের মনের ওপর দিয়ে ঝড়টাও কম যাবে! …

আই উইশ আমি দিনযাপনে একদম খুল্লাম খুল্লা লিখতে পারতাম এই ব্যাপারটা নিয়ে … আমার নিজের জায়গা থেকে লিখতে কোনো বাধা নাই … কিন্তু আমি লিখবো না … সেই ব্যক্তিটার জন্যই লিখবো না … একদিন সেই ব্যক্তির বয়সের পরিপক্কতাই তাকে অনেক কিছু অন্যভাবে ভাবাবে, যেটা এখন ভাববার মতো পরিপক্কই সে হয় নাই … তাই আমি এখন যেভাবে ভাবছি, সেটা তার কাছে হয়তো মনে হয় যে আমি আসলে বেশি বেশি ভাবছি! … অথচ আমার তো মনে হয় আমি যা ভেবেছি, যেভাবে ভেবেছি সে নিজেই তার চেয়ে অনেক বেশি-ই ভেবেছে ব্যাপারটা নিয়ে, আর সেকারণে হয়তো ভাবছে এভাবে দূরত্ব নিয়ে থাকাটাই সবচেয়ে ভালো সমাধান! অন্তত তার নিজের জন্য! …

যাই হোক … এসব ভাবনা-চিন্তা বাদ দেই … আমাকে একটা ঘটনা যেভাবে ইফেক্ট করে, সেই ঘটনার অংশীদার আরেকজনকে ঠিক সেভাবেই ঘটনাটা ইফেক্ট করবে না … আমার ইফেক্টেড হবার কন্টেক্সট, আর তার ইফেক্টেড হবার কন্টেক্সট কখনোই এক না! … তার জন্য ঘটনাটা হয়তো ‘ শিট! কি করলাম!’ আর আমার জন্য হয়তো ‘ শিট! আবারো!’ …

ধুর! আবারো এই ঘটনার মধ্যেই ঘুরপাক খাওয়া শুরু করলাম! … বাদ! বাদ! সব বাদ! …

আর লিখবো না আজকে … দেখা যাবে ঘুরে-ফিরে ওই প্রসঙ্গেই আবার চলে গেছি … তার চেয়ে আজকের মতো অফ যাই … তাই ভালো … অলরেডি রাত ১টা বাজে! কালকে সকাল সকাল উঠে আবার স্কুলে যেতে হবে … দুইদিনে ঘুমের রুটিনের ব্যাড়াছ্যাড়া অবস্থা … একটাই শান্তি যে কালকের পরে আবার শুক্র-শনি … কোনোরকমে কালকে স্কুল করে আসতে পারলেই হলো! …

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s